জীবিত মানুষ পানিতে ডুবে যায় কিন্তু মৃতদেহ পানিতে ভাসে কেন?

জীবিত মানুষ পানিতে ডুবে যায় কিন্তু মৃতদেহ পানিতে ভাসে কেন?

নদী বা পুকুরের পানি দেখলে সবার মন খুশি হয়ে যায়। মনটা ছটফট করে একটু পানিতে নামার জন্য।সামর্থ্যবান মানুষ টাকা খরচ করে সমুদ্র দেখতে যায়।কেউ আবার কাছে পিঠে নদীতে যায় নদীর ঢেউয়ের কল্লোল শোনার জন্য।

কিন্তু সাঁতার না জানলে পানিতে নামেন না ডুবে যাওয়ার ভয়ে। জীবিত মানুষ পানিতে নামলে ডুবে যায় কিন্তু মৃত মানুষ পানিতে ভাসে কেন এই নিয়ে আমাদের মাথায় ঘুরপাক খায় নানান চিন্তা। তাহলে আসুন জানা যাক এই প্রশ্নের সঠিক উত্তর।

আপনি আরও পড়তে পারেন…. অক্ষত লাশ এর রহস্য

কোন বস্তু পানিতে ডোবে বা ভাসে কেন?

আর্কিমিডিসের বিখ্যাত প্লবতার সূত্র প্রায় সবাই জানি।এই সূত্রের মাধ্যমে আমরা জানতে পারি যে কোন বস্তু পানিতে ডুবে যাবে আর কোন বস্তু পানিতে ভেসে থাকবে।কোনো বস্তু আংশিক বা সম্পূর্ণরূপে পানিতে ডুবে গেলে সে তার সমআয়তনের পানি অপসারণ করে।
এই অপসারিত  পানির ওজন যদি বস্তুটির নিজের ওজন থেকে কম হয়-তবেই কেবল বস্তুটি পানিতে ডুবে যাবে।
আবার অপসারিত পানির ওজন যদি বস্তুটির ওজনের চেয়ে বেশি হয়, তবে বস্তুটি ভেসে উঠবে।
অপসারিত পানির ওজন যদি বস্তুটির ওজনের সমান হয় তবে বস্তুটি নিমজ্জিত অবস্থায় ভাসবে। অর্থাৎ পানির একটু নিচে ভাসমান থাকবে।
কোন বস্তুর ঘনত্ব পানির ঘনত্ব থেকে কম হলে বস্তুটি এমনিতেই পানিতে ভাসে।
যেমন-কাঠ, কর্ক ইত্যাদি হালকা বস্তু পানিতে ভাসে। এর কারণ হলো তাদের ঘনত্ব পানির ঘনত্ব থেকে কম। পানির ঘনত্ব থেকে যেসব বস্তুর ঘনত্ব বেশি সেসব বস্তু পানিতে ডুবে যায়। যেমন লোহা, ইট ইত্যাদি।

জীবিত মানুষ পানিতে ডুবে যায় কেন?

জীবিত মানুষের দেহের ঘনত্ব পানির ঘনত্ব হতে বেশি তাই স্বাভাবিক নিয়মে জীবিত মানুষের দেহ পানিতে ডুবে যায়।
আবার জীবিত মানুষের দেহ পানিতে পরলে যে পরিমাণ পানি অপসারণ করে সেই পানির ভর মানুষটির ভরের চেয়ে কম এই কারণে আর্কিমিডিসের সূত্র অনুযায়ী জীবিত মানুষ পানিতে ডুবে যায়।
অবাক করার মত বিষয় হলো মানুষ পানিতে পরার সাথে সাথেই ডুবে যায় না কিছুক্ষণ ভেসে থাকে, এর কারণ  মানুষের ফুসফুসে প্রায় ৬ লিটার বাতাস থাকে, এই বাতাস মানুষের দেহকে কিছুক্ষণ ভাসিয়ে রাখে।এমনকি পানির নিচে ডুবে গেলেও ভুস করে ভেসে উঠে।যেমন উচু স্হান থেকে পানিতে লাফিয়ে পরলে পানির তলদেশ থেকে মানুষের দেহ দ্রুত পানির উপরে ভেসে উঠে।
সাতার না জানলে, মানুষ পানিতে পরার পর আতংকিত হয় এবং ছটফট করতে থাকে এর ফলে দেহ এলোপাথাড়িভাবে পানি অপসারণ করে ফলশ্রুতিতে দেহ দ্রুত পানিতে ডুবে যায়। সাতার জানা মানুষ, পানিতে পরার পর ডুব দিয়ে তলদেশে বেশিক্ষণ থাকতে পারে না কারণ ফুসফুসের বাতাস দেহকে উপরে ভেসে তোলে।
সাতার জানা মানুষ পানিতে পরার পর হাত পা মাছের পাখনার মত ব্যবহার করে দেহকে ভাসিয়ে রাখে এই কাজে সহায়ক ভূমিকা রাখে ফুসফুসের বাতাস। ফুসফুসে বাতাস ভরা না থাকলে কেউ সাঁতার কাটতে পরতো না।
আরও পড়তে পারেন-“পুরুষ মানুষের মৃতদেহ পানিতে উপর হয়ে আর স্ত্রী লোকের মৃতদেহ চিৎ হয়ে ভাসে কেন?

জীবিত মানুষ পানিতে ডুবে যায়
জীবিত মানুষ পানিতে ডুবে যায়

সাঁতার না জানা মানুষ কিভাবে ডুবে যায়?

সাঁতার না জানা মানুষ পানিতে পরলে বাঁচার জন্য এলোপাথাড়ি হাত পা ছোঁড়ে ফলে দ্রুত ফুসফুসের বাতাস শেষ হয়ে যায়। ফুসফুসের বাতাস শেষ হলে ফুসফুসে পানি প্রবেশ করে। এর পাশাপাশি ডুবন্ত মানুষটি প্রচুর পানি খেয়ে ফেলে। ফুসফুস ও পেটের পানি দেহের ওজন আরো বৃদ্ধি করে এবং দেহ পানির নিচে তলিয়ে যায়।

সাঁতার না জানা মানুষ ডুবে যায়
সাঁতার না জানা মানুষ ডুবে যায়

মৃতদেহ পানিতে ভাসে কেন?

পানিতে ডুবে মারা যাওয়ার পর প্রাথমিক অবস্হায় মৃতদেহ পানির নিচে ডুবে থাকে।মৃত্যর প্রায় ৫-৬ঘন্টা পর মৃতদেহের পেটে থাকা ব্যাকটেরিয়া প্রচুর মিথেন,হাইড্রোজেন সালফাইড, কার্বনডাইঅক্সাইড গ্যাস উৎপন্ন করতে থাকে এই গ্যাস জমা হতে হতে পেট ফুলে উঠে।

 একটি নির্দিষ্ট মাত্রার গ্যাস জমা হলে মৃতদেহের আয়তন অনেক বেড়ে যায়।এবার মৃতদেহ যে পানি অপসারণ করে তার ভর দেহের ভরের চেয়ে বেশি হয় পাশাপাশি পেটের গ্যাস  মৃতদেহকে ভাসিয়ে তোলে।পেটে নির্দিষ্ট পরিমাণ গ্যাস জমা হতে ৮-২৪ ঘন্টা বা তার থেকেও বেশি সময় লাগতে পারে।
অর্থাৎ পানিতে ডুবে মরলে অন্তত ৮ ঘন্টার আগে মৃতদেহ পানির উপরে ভেসে উঠবে না।অনেক সময় ব্যাতিক্রম দেখা যায় এই ঘটনার।ডুবে মরার ২-৫ ঘন্টার মধ্যেই কিছু লাশ পানির উপরে ভেসে উঠে, তখন মানুষ বলে দেও -দানো মানুষকে টেনে নিয়ে গিয়েছিল আবার ছেড়ে দিয়েছে।
এর বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা হলো, পানিতে ডুবে মরার পর পানির স্রোতের টানে বা ঘূর্ণিজল এর কারণে লাশ ভেসে উঠতে পারে।আরেকটি বৈজ্ঞানিক যুক্তি হলো, ফুসফুসে পানি প্রবেশের পর মৃত দেহের ভর বৃদ্ধি পায় কিন্তু হঠাত আরো বেশি পানি প্রবেশ করলে মৃতদেহের ভেতরের পানির ঘনত্ব এবং বাইরের পানির ঘনত্ব সমান থাকে, এবার লাশ যে পরিমাণ পানি অপসারণ করে তার ভর লাসের ভরের সমান হয়, ফলে লাশ কিছুক্ষণ পানির উপরি তল বরাবর ভাসতে থাকে।
ব্যাকটেরিয়ার দ্বারা মৃতদেহের পচন প্রক্রিয়া শেষ হলে লাশের পেট থেকে গ্যাস বের হয়ে যায় ফলে লাশটি চিরদিনের জন্য পানির নিচে ডুবে যায়। একেই বলে সলিল সমাধি।মৃতদেহ পানিতে ভাসে কেন?

মৃতদেহ পানিতে ভাসে কেন?
মৃতদেহ পানিতে ভাসে কেন?

মানুষের লাশ পানিতে ভাসে কেন?

উপরে মত উত্তর ‘ মৃতদেহ পানিতে ভাসে কেন? ‘

Mrito deho panite vase keno?

jibito manush panite dube jay keno? satar na janle manush panite dube jay keno?kono bostu panite dube jay keno?Mitto deho panite vase keno?mora manush panite vase keno?

Please Click On Just One Add To Help Us

মহাশয়, জ্ঞান বিতরণের মত মহৎ কাজে অংশ নিন।ওয়েবসাইট টি পরিচালনার খরচ হিসেবে আপনি কিছু অনুদান দিতে পারেন, স্পন্সর করতে পারেন, এড দিতে পারেন, নিজে না পারলে চ্যারিটি ফান্ডের বা দাতাদের জানাতে পারেন। অনুদান পাঠাতে পারেন এই নম্বরে ০১৭২৩১৬৫৪০৪ বিকাশ,নগদ,রকেট।এই ওয়েবসাইট আমার নিজের খরচায় চালাই। এড থেকে ডোমেইন খরচই উঠেনা। আমি একা প্রচুর সময় দেই। শিক্ষক হিসেবে আমার জ্ঞান দানের ইচ্ছা থেকেই এই প্রচেষ্টা। আপনি লিখতে পারেন এই ব্লগে। এগিয়ে নিন বাংলায় ভালো কিছু শেখার প্রচেষ্টা।

81 / 100
error: Content is protected !!