ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের ঘরোয়া চিকিৎসা#

ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের ঘরোয়া চিকিৎসা#

করোনাভাইরাস মহামারি অতিক্রান্ত হতে না হতেই আবার নতুন আতঙ্ক মানুষের ঘুম হারাম করে দিয়েছে তা হলো ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট। সবাই চিন্তিত এই ভাইরাস আক্রমণ করলে কী করব? সুখের বিষয় হলো এই ভাইরাস অতোটা প্রাণঘাতী নয়। হাসপাতালে না গিয়ে বাড়িতে বসেই এই ভাইরাসের আক্রমন প্রতিহত করা সম্ভব। তাহলে আসুন জেনে নেই কিভাবে ঘরে বসেই ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের চিকিৎসা করবেন।

ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট ঘরোয়া চিকিৎসা,ওমিক্রন ভেরিয়েন্ট থেকে বাঁচার উপায়:

আপনি আরো পড়তে পারেন… ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট কী?ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট এর লক্ষণ#…….. করোনার ঔষধ কী? কোভিড-১৯ চিকিৎসায় ব্যবহৃত ঔষধ#

ওমিক্রন ভেরিয়েন্ট থেকে বাঁচার উপায়:

করোনা ভাইরাসের চিকিৎসায় ভেষজ ঔষধ প্রয়োগের মাধ্যমে ভালো ফলাফল পান ভারতের এক আয়ুর্বেদাচার্য যার নাম ড. সুরদেন্দ্র পি নাগ। তার পরামর্শ অনুসারে এসব পদ্ধতি অনুসরণ করে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট এর চিকিৎসা ঘরেই করা সম্ভব।

ওমিক্রন ভেরিয়েন্টের ঘরোয়া চিকিৎসা

ঘরে ওমিক্রন ভেরিয়েন্টের ভেষজ চিকিৎসা পদ্ধতি

১। ওমিক্রন আক্রমণ প্রতিরোধকারী ভেষজ শরবত খান

ওমিক্রন ভেরিয়েন্টের ভেষজ চিকিৎসা,ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট শরবত
ওমিক্রন আক্রমণ প্রতিরোধকারী ভেষজ শরবত

একটা বাটিতে ১ লিটার পানি নিয়ে এর ভেতর ৪ টুকরা আদা, ১০টি লবঙ্গ,২টি লম্বা দারুচিনির টুকরা,১টি বচ ও ৫টি গোলমরিচ দিয়ে দিন এর পর পানি ½ লিটার হওয়া পর্যন্ত ফুটাতে থাকুন।পানি হাফ লিটার হয়ে গেলে নামিয়ে নিন। চায়ের কাপে এককাপের ৪ ভাগের ১ ভাগ এই পানি নিন সাথে সাধারণ গরম পানি মিশিয়ে কাপ পূর্ণ করুন। এতে মধু বা আঁখের গুড় মিশিয়ে গরম গরম খেয়ে ফেলুন চায়ের মত করে।

ইচ্ছে করলে এতে চায়ের লিকার মিশিয়ে নিতে পারেন।এর ফলে গলায় যে ভাইরাসগুলো থাকে সেগুলো মারা যায়। এছাড়াও গলায় গরম লাগার ফলে রক্তপ্রবাহ বেড়ে যায়। ফলে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের কারণে গলায় যে চুলকানির মত সমস্যা দেখা দেয় তা ভালো হয়ে যায়।

২। গরম ভাপ আক্রমণ প্রতিরোধ করতে পারবে

 গরম ভাপ ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের আক্রমণ প্রতিরোধ করতে পারবে
গরম ভাপ ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের আক্রমণ প্রতিরোধ করতে পারবে

চুলা বা ইলেক্ট্রিক হিটারে পানি গরম করে বাটিতে নিন তারপর একটি কাপর দিয়ে গরম পানির বাটি ও মাথা ঢেকে নিন তার পর গভীরভাবে শ্বাস টানুন। এ রকম করে ৫ মিনিট শ্বাস নিন। পানির মধ্যে এক ফোঁটা মেন্থল দিলে আরও ভালো হয়। মেন্থলের ঝাঁঝালো গন্ধের কারণে নাক বেশি পরিষ্কার হবে এতে নাকের গহ্বরে ভাইরাস ঢুকলেও সুবিধা করতে পারবে না বেরিয়ে যাবে। মেন্থল না থাকলেও সমস্যা নেই একটু লবণ যোগ করতে পারেন পানিতে।

৩। লাল চা আক্রমণ প্রতিরোধ করতে পারবে

ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের আক্রমণ প্রতিরোধে লাল চা খান
লাল চা ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের আক্রমণ প্রতিরোধ করতে পারবে

কম লিকারের হালকা লাল চা দিনে ৪ বার খেতে পারেন।লাল চায়ের মধ্যে জীবাণুনাশক বা এন্টিসেপ্টিক বৈশিষ্ট্য আছে। বারবার শুকনো কাশির ফলে গলার টিস্যু ফেটে যেতে পারে। চা এই ইনফেকশন রোধ করে। ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের আক্রমণে গলার ভেতর চুলকানির মত অস্বস্তিকর অনুভূতি হয়। এটি দূর করতে খুব ভালো একটি উপায় লাল চা খাওয়া। গ্রীন টি খেতে পারেন। গ্রীন টি তে প্রচুর এন্টি অক্সিডেন্ট আছে যা আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করবে।

৪। আক্রমণ প্রতিরোধে গড়গড়া কুলি করুন

ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের আক্রমণ প্রতিরোধে গড়গড়া কুলি করুন
ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের আক্রমণ প্রতিরোধে গড়গড়া কুলি করুন

গরম পানি দিয়ে গড়গড়া কুলি করুন। গলা ব্যথা হোক বা না হোক সকালে ঘুম থেকে উঠে, দুপুরে এবং সন্ধ্যায় গড়গড়া কুলি করা উচিত। এতে গলার ভেতর জীবাণু বেশিক্ষণ টিকে থাকতে পারবে না।

৫। জিঙ্ক ট্যাবলেট খাবেন

ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের ঘরোয়া চিকিৎসায় জিঙ্ক ট্যাবলেট খাবেন
ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের ঘরোয়া চিকিৎসায় জিঙ্ক ট্যাবলেট খাবেন

রাতে শোয়ার আগে একটি করে জিঙ্ক ট্যাবলেট খাবেন।জিংক শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে সতেজ, সজীব রাখে এবং প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। ভাইরাস ঠেকানোর জন্য এই মুহূর্তে আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করা বেশি জরুরী।

৬। Vitamin-C খেতে হবে

ভিটামিন সি ও ই গ্রহণ করুন
ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের ঘরোয়া চিকিৎসায় Vitamin-C খেতে হবে

Vitamin-C সমৃদ্ধ ফল ও সব্জি খেতে হবে।পেয়ারা, লেবু, আমলকি, আপেল,কমলা,কাঁচা মরিচ,কিসমিস ইত্যাদি ফলে প্রচুর ভিটামিন-C আছে। এই Vitamin-C কোষের এন্টি অক্সিডেন্ট বৃদ্ধি করে ফলে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।ভিটামিন ‘সি’ শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে সতেজ, সজীব রাখে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পেলে ভাইরাস সহজে আক্রমণ করে দেহের ক্ষতি করতে পারবে না। আবার এন্টি অক্সিডেন্ট কোষে ভাইরাস প্রবেশে বাঁধা সৃষ্টি করবে।

৭। ভিটামিন ‘ডি’ খেতে হবে

ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের আক্রমণ প্রতিরোধে ভিটামিন 'ডি' খেতে হবে
ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের আক্রমণ প্রতিরোধে ভিটামিন ‘ডি’ খেতে হবে

যেসব খাবারে প্রচুর ভিটামিন ‘ডি’ আছে সেগুলো বেশি করে খাবেন। ডিমের কুসুম,দুধ,কড মাছের তেল,তৈলাক্ত মাছ,কলিজা, মাখন, উন্নত প্রজাতির মাশরুম Vitamin-D তে ভর্তি। ভিটামিন ডি-র সবচেয়ে ভালো উৎস সূর্য। দ্রুত ভিটামিন ডি পেতে চাইলে বাজার থেকে ট্যাবলেট কিনে খেতে পারেন।

সতর্কতা: রোগীর অবস্থা খুব খারাপ হলে বাড়িতে না রেখে হাসপাতালে ভর্তি করাতে হবে।

Info source: Independent television

Tag: ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের ঘরোয়া চিকিৎসা ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের ঘরোয়া চিকিৎসা .. ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের ঘরোয়া চিকিৎসা … ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের ঘরোয়া চিকিৎসা … ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের ঘরোয়া চিকিৎসা

Please Click on Just one Add to help us

মহাশয়, জ্ঞান বিতরণের মত মহৎ কাজে অংশ নিন।ওয়েবসাইট টি পরিচালনার খরচ হিসেবে আপনি কিছু অনুদান দিতে পারেন, স্পন্সর করতে পারেন, এড দিতে পারেন, নিজে না পারলে চ্যারিটি ফান্ডের বা দাতাদের জানাতে পারেন। অনুদান পাঠাতে পারেন এই নম্বরে ০১৭২৩১৬৫৪০৪ বিকাশ,নগদ,রকেট।

এই ওয়েবসাইট আমার নিজের খরচায় চালাই। এড থেকে ডোমেইন খরচই উঠেনা। আমি একা প্রচুর সময় দেই। শিক্ষক হিসেবে আমার জ্ঞান দানের ইচ্ছা থেকেই এই প্রচেষ্টা।

DMCA.com Protection Status