জোনাকি পোকার লেজে আলো জ্বলে কেন?

Table Of Contents
  1. জোনাকি পোকার লেজে আলো জ্বলে কেন?

জোনাকি পোকার লেজে আলো জ্বলে কেন?

জোনাকি পোকার লেজে আলো জ্বলে কেন? রাঁতের আঁধারে মিটিমিটি করে জ্বলা জোনাকি পোকার আলো একটা মায়াবী পরিবেশ সৃষ্টি করে।এই মায়াবী আবহ দেখতে কার না ভালো লাগে? কিন্তু কখনও চিন্তা করেছেন কি? বিদ্যুৎ ছাড়া এই আলো কিভাবে জ্বলে? আজব না?

ছোটবেলায় আমরা কবি আহসান হাবিবের “জোনাকিরা” কবিতা পড়েছি। কি সুন্দর করেই না কবি জোনাকিদের বর্ণনা করেছেন।

তোমরা এলে কারা?
তোমরা কি ভাই নীল আকাশের তারা?
আলোর পাখি নাম জোনাকি
জাগি রাতের বেলা,
নিজেকে জ্বেলে এই আমাদের
ভালোবাসার খেলা।

কবিতা পড়ার পর ভাবতাম জোনাকিরা কিভাবে আলো জ্বালায়।আবার রাতের অন্ধকারে জানালা দিয়ে জোনাকিদের আলো দেখে বেশ কৌতুহল হতো এত মনোহর আলো জোনাকিরা কোথায় পেলো? তখন আমার প্রশ্নের উত্তর কেউ দেয় নি। আজ, চলুন ঘুরে আসি জোনাকিদের রাজ্য থেকে আর জোনাকির আলো চোখে লাগিয়ে খুঁজে দেখি প্রশ্নের উত্তর!!! জোনাকি পোকার দেহে আলো জ্বলে কেন?

আপনি আরও পড়তে পারেন-ঘাম কি? মানুষ ঘামে কেন?) (সতীত্ব বা কুমারীত্ব কি)

জোনাকি পোকার পরিচিতি

পতঙ্গদের পর্বের নাম হলো আর্থ্রোপোডা।এই পর্বের একটি গোষ্ঠির নাম হলো কলিওপটেরা।কলিওপটেরা গোষ্ঠির সদস্যদের সাধারন পরিচিতি গুবরেপোকা হিসেবে। এমনই একটি গুবরেপোকা হলো জোনাকি।এত সুন্দর জোনাকি গুবরেপোকা গোষ্ঠির সদস্য শুনে খারাপ লাগছে কি? তাহলে জোনাকির ভালো বাংলা নাম শুনুন “তমোমণি” পৃথিবীতে প্রায় দুই হাজার প্রজাতির জোনাকি পোকা দেখা যায়।

জোনাকি কোথায় থাকে?

জোনাকিদের বেশিরভাগ বাস করে গ্রীষ্মমন্ডলীয় এবং নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলে।প্রচুর জৈব পদার্থ আছে এমন স্থান এরা বসবাসের জন্যে পছন্দ করে।জোনাকিরা সাধারণ ভেজা জায়গা পছন্দ করে।
তাই জলাশয়ের ধারে এদের বেশি দেখা যায়। জলাশয়ের পাড় ধরে গজিয়ে ওঠা ঘাস ও ঝোপ-ঝাড়ে বাসা বাঁধে। লম্বা ঘাস জোনাকিদের পছন্দ বাসা তৈরির জন্য।

জোনাকি পোকার ছবি

জোনাকি পোকা
জোনাকি পোকা

জোনাকির বৈজ্ঞানিক শ্রেণিবিন্যাস

পর্বঃ আর্থ্রোপোডা
শ্রেণীঃ ইনসেক্টা
বর্গঃ কলিওপটেরা
গোত্রঃ ল্যাপিরিডি
গণঃPhotinus,Anadrilus,Lamprigera,Photinus,Photoctus ইত্যাদি।

জোনাকি পোকার বৈজ্ঞানিক নাম

জোনাকি পোকার বৈজ্ঞানিক নাম: Photinus pyralis (একটি প্রজাতি)

জোনাকি জীবন্ত কিংবদন্তি

সমুদ্রের তলদেশে বসবাসকারী অনেক মাছ বা পতঙ্গ আলো উৎপাদন করতে পারে।স্থলভাগে বসবাসকারী কোন প্রাণী এই রকম আলো উৎপাদন করতে পারে না,জোনাকি পোকা ছাড়া। এই অর্থে জোনাকি পোকা হলো স্থলভাগে বসবাসকারী প্রাণিদের মধ্যে আলো উৎপাদনকারী একমাত্র জীবন্ত সদস্য।

জোনাকির আলো কি?

জোনাকির তলপেটে স্বয়ংপ্রভ আলো মিট মিট করে।রাতের অন্ধকারে এদের তারার মত মিটমিট করতে দেখা যায়।
জোনাকি এই আলো তৈরি করে এদের তলপেটে আলো উৎপাদনকারী অঙ্গে উপস্থিত লুসিফারিন নামক রাসায়নিক যৌগ,লুসিফেরেজ এনজাইম,ATP,ম্যাগনেসিয়াম বা ক্যালসিয়াম আয়ন এবং অক্সিজেন এর মধ্যে সংঘটিত রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে।
জোনাকির আলো তৈরি করার প্রক্রিয়াকে বলে বায়োলুমিনোসেন্স।জোনাকির বাচ্চারা আলো তৈরি করতে পারে এদের বলে গ্লোয়িং ওয়ার্ম।
আপনি জানলে অবাক হবেন যে প্রত্যেক জোনাকির আলো স্বতন্ত্র। একটির আলোর সাথে অন্যটির কোন মিল নেই।শুধু আলোর তরঙ্গ দৈর্ঘ্য বিবেচনা করে প্রত্যেক জোনাকি পোকাকে আলাদা করা যায়।

জোনাকি পোকা
জোনাকির আলো

জোনাকি পোকার আলোর বৈশিষ্ট্য

  1. জোনাকির আলোর রং লাল,সবুজ,নীলাভ সবুজ হতে পারে।
  2. জোনাকির আলো ঠান্ডা আলো।
  3. আল্ট্রাভায়োলেট,ইনফ্রারেড তরঙ্গের বিচ্ছুরণ ছাড়াই এই আলো উৎপন্ন হয়।
  4. এই আলোর তরঙ্গ দৈর্ঘ্য 510 থেকে ৬৭০ ন্যানোমিটার।

জোনাকি পোকার আলোর রহস্য কি?

জোনাকির আলোর রহস্য লুকিয়ে আছে এর রাসায়নিক গঠনের মধ্যে।

জোনাকির আলো সৃষ্টির রাসায়নিক ব্যাখ্যা

জোনাকির তলপেটে আলো উৎপাদনকারী অঙ্গ আছে।এই অঙ্গে লুসিফারিন নামক রাসায়নিক পদার্থ আছে। লুসিফারিন এমন এক পদার্থ যা পর্যাপ্ত শক্তি ও অক্সিজেন এর যোগান পেলে জ্বলে উঠে। অক্সিজেন ফুরিয়ে গেলেই আলো বন্ধ হয়ে যায়।লুসিফারিন এর সাথে অক্সিজেন ও ATP এর সংযোগ ঘটায় লুসিফেরেজ নামক এনজাইম। এই এনজাইম এই রাসায়নিক বিক্রিয়ার নিয়ন্ত্রক। এই বিক্রিয়ার গতিবেগ নির্ধারণে ভূমিকা রাখে ম্যাগনেসিয়াম আয়ন।জোনাকির শ্বসনতন্ত্র থেকে অক্সিজেন আসে।এই চিত্রগুলি দেখুন খুব সহজে বুঝতে পারবেন।

জোনাকি পোকার আলোর রহস্য
জোনাকির আলোর রহস্য
জোনাকির আলো সৃষ্টির  রাসায়নিক ব্যাখ্যা
জোনাকির আলো সৃষ্টির রাসায়নিক ব্যাখ্যা

লুসিফেরিন কি?

জোনাকির দেহে প্রাপ্ত এক ধরণের রাসায়নিক পদার্থ হলো লুসিফেরিন/লুসিফারিন।লুসিফারিন, লুসিফেরেজ এনজাইম ও অক্সিজেন এর সাথে বিক্রিয়া করে আলো সৃষ্টি করে।
IUPAC নামঃ(4S)-2-(6-hydroxy-1,3-benzothiazol-2-yl)-4,5-dihydrothiazole-4-carboxylic acid, রাসায়নিক সংকেতঃ C11H8N2O3S2 আনবিক ভরঃ 280.32 g·mol−1

লুসিফেরিন
লুসিফেরিন

জোনাকি পোকা আলো দেয় কিন্তু নিজে পুড়ে যায়না কেন?

আমরা জানি আলো উৎপাদন করলে প্রচুর তাপ সৃষ্টি হয়।তাহলে জোনাকি যখন আলো উৎপাদন করে তখন তাপ উৎপন্ন হয়ে তো জোনাকির নিজেই পুড়ে যাওয়ার কথা? কিন্তু তা হয়না! এর কারণ বৈদ্যুতিক বাল্বে যখন বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয় আলো জ্বালানোর জন্য তখন বেশিরভাগ বিদ্যুৎ তাপ শক্তিতে পরিণত হয় খুব অল্প পরিমান বিদ্যুৎ আলোক শক্তিকে পরিণত হয় একারণে বৈদ্যুতিক বাল্ব খুব গরম হয়।

কিন্তু জোনাকি আলো জ্বালানোর সময় যে শক্তি ব্যায় করে তার প্রায় সব অংশই আলোক শক্তিতে পরিণত হয় ফলে কোন তাপ উৎপন্ন হয়না। এই ধরণের বিক্রিয়ার ফলে জোনাকি সারারাত আলো জ্বালালেও জোনাকির দেহ বিন্দুমাত্র গরম হয় না

জোনাকি আলো জ্বালায় কেনো?

জোনাকি আপনার মনকে আনন্দিত করার জন্যে বা কবিদের কবিতা লেখায় সাহায্য করার জন্যে আলো জ্বালায় না।এরা আলো জ্বালায় প্রজননের জন্যে সঙ্গী খুঁজতে।পুরুষ সদস্য স্ত্রী সদস্যকে যৌনমিলনে অংশগ্রহন করতে আহ্বান করে আলো জ্বেলে।
কোন স্ত্রী সদস্য যদি আলো পছন্দ করে তবে সে পাল্টা আলো জ্বেলে সম্মতি জানায়।সম্মতিসূচক আলো দেখে পুরুষ সদস্য মনের আনন্দে স্ত্রী সদস্যের কাছে আসে এবং মিলিত হয়।
আপনি জানলে অবাক হবেন যে প্রত্যেক জোনাকির আলো জ্বালানোর ধরণ আলোর প্রকৃতি আলাদা আলাদা। এই আলোর বিভিন্নতা আমরা বুঝতে পারি না।
এক প্রজাতির জোনাকি কখনই অন্য প্রজাতির জোনাকির সাথে যৌনমিলন করে না। আলোর প্রকৃতি বিবেচনা করে স্বজাতি খুঁজে নেয়।

জোনাকির আলো জোনাকির জন্যই বিপদ

পুরুষ জোনাকির আলো দেখে শুধু স্ত্রী জোনাকিই আকৃষ্ট হয়না। শিকারি প্রাণি খুব সহজে জোনাকিদের আলো দেখে আকৃষ্ট হয় এবং খুঁজে বের করে। তারপর মনের আনন্দে জোনাকির বংশ ধ্বংস করতে থাকে। এই অবস্থা থেকে বাঁচার জন্যে জোনাকিরা বিকট গন্ধ উপন্ন করতে পারে আবার কেউ বিষাক্ত খাবার খেয়ে নিজ দেহে বিষ উৎপন্ন করে।

চিকিৎসা ক্ষেত্রে জোনাকির আলোর ব্যবহার

জোনাকির আলো জ্বালানোর জন্যে লুসিফারিন রাসায়নিক দায়ী এটা আমরা পূর্বে জেনেছি। এই লুসিফারিন উৎপাদনকারী জীন(জীবের দৃশ্যমান ও অদৃশ্য বৈশিষ্ট্যের ধারক ও বাহক) বিজ্ঞানীগণ সনাক্ত করেছেন এবং জীনটিকে জোনাকির দেহ থেকে সংগ্রহ করেছেন। এই জীন ক্যান্সার কোষকে খুঁজে বের করতে ব্যবহার করা হয়।

টেস্টটিউব বেবি তৈরির সময় পরিস্ফুটনের ঘটনা ভালোভাবে প্রত্যক্ষ করার জন্যে ব্যবহার করা হয়।মানব দেহের অভ্যন্তরে কোন স্থানে টিউমার থাকলে তার স্পষ্ট ছবি তুলতে ব্যবহৃত হয়। তামাক গাছের পাতায় এই জীন যুক্ত করা হয়েছে ফলে রাত্রিবেলা তামাক গাছ জ্বলজ্বল করে।

 রাত্রিবেলা তামাক গাছ জ্বলজ্বল করে
রাত্রিবেলা তামাক গাছ জ্বলজ্বল করে
জোনাকি নিয়ে কিছু প্রশ্ন ও উত্তর

জোনাকি পোকা কি খায়?

জোনাকির ছোট বাচ্চা বা শুককিট মাংসাশী। এরা এসকারগোট নামক এক ধরণের শামুক খাদ্য হিসেবে খায়।বড় জোনাকি জৈবপদার্থপূর্ণ মাটি থেকে ক্ষুদ্র জীব শিকার করে খায়। আবার ফুলের মধুও পান করতে পারে জোনাকি।

জোনাকি পোকা কতদিন বাঁচে?

একটি জোনাকির সম্পূর্ণ জীবনকাল খুবই কম মাত্র ৪-৭মাস প্রায়।স্ত্রী জোনাকি ডিম পাড়ার পরপর মারা যায়। বেশিরভাগ পুরুষ জোনাকি স্ত্রী জোনাকির সাথে মিলিত হওয়ার পর মারা যায়।

জোনাকি ঘরে আসলে কি হয়?

অনেক দেশে কুসংস্কার আছে যে জোনাকি ঘরে আসা সৌভাগ্যের প্রতিক।কিন্তু এই কথার কোন প্রমাণ নাই। জোনাকি ঘরে আসে পথ ভুল করে অথবা কোন শিকার কে তারা করতে।

জোনাকি পোকা গায়ে বসলে কি হয়?

জোনাকি আপনার গায়ে বসলে কোন ক্ষতি হবে না কারণ জোনাকির দেহে কোন ক্ষতিকর উপাদান নেই। জোনাকির দংশন করার মত কোন হুল নেই।কাজেই আতংকিত হবেন না।জোনাকি গায়ে বসলে তারাতারি বিয়ে হয় এটা একটা ভ্রান্ত ধারণা।

মানুষ জোনাকি খেয়ে ফেললে কি হবে?

মানুষ জোনাকি খেয়ে ফেললে পেটে গিয়ে মাছ মাংসের মত হজম হয়ে যাবে। তবে জোনাকির দেহে কোন জীবাণু থাকলে পেট খারাপ হতে পারে।

Jonaki pokar dehe alo jole keno?

jonaki pokar leje alo jole keno?jonaki pokay alo jole keno?luciferin ki?jonki poka ki khay?jonaki ghore asle ki hoy,jonaki gae porle ki hoy/jonakir alo,jonaki poka,jonakir alo ki?jonaki alo jalay ken,jonaki pokar alor rohosso ,All photo credit Goes to sutterstock.com

Please Click On Just One Add To Help Us

মহাশয়, জ্ঞান বিতরণের মত মহৎ কাজে অংশ নিন।ওয়েবসাইট টি পরিচালনার খরচ হিসেবে আপনি কিছু অনুদান দিতে পারেন, স্পন্সর করতে পারেন, এড দিতে পারেন, নিজে না পারলে চ্যারিটি ফান্ডের বা দাতাদের জানাতে পারেন। অনুদান পাঠাতে পারেন এই নম্বরে ০১৭২৩১৬৫৪০৪ বিকাশ,নগদ,রকেট।

এই ওয়েবসাইট আমার নিজের খরচায় চালাই। এড থেকে ডোমেইন খরচই উঠেনা। আমি একা প্রচুর সময় দেই। শিক্ষক হিসেবে আমার জ্ঞান দানের ইচ্ছা থেকেই এই প্রচেষ্টা। আপনি লিখতে পারেন এই ব্লগে। এগিয়ে নিন বাংলায় ভালো কিছু শেখার প্রচেষ্টা।

o?