হলুদ বেশি খেলে কি জন্ডিস হয়?

হলুদ বেশি খেলে কি জন্ডিস হয়?

শহর কিংবা গ্রামে যেখানেই যান একটা কথা হরহামেশাই শুনতে পাওয়া যায় যে হলদি বেশি খেলে জন্ডিস হয়। অনেকে তো এই ভয়ে হলদে রংয়ের খিচুড়ি বা পোলাও একদম খান না।আসল বিষয় কি আপনি জানেন? জানা না থাকলে আসুন প্রবেশ করি হলদে দুনিয়ায়!!!! খুঁজে দেখি হলুদ বেশি খেলে কি জন্ডিস হয়?

আপনি আরও পরতে পারেন…. জোড়া কলা খেলে কি জমজ বাচ্চা হয়?

জন্ডিস রোগ কি?

প্রতি চারমাস পরপর মানুষের লাল রক্ত কণা নষ্ট হয়ে যায়। মানব দেহের কলিজায় কিছুটা লাল রক্ত কণা ধ্বংস হয়। এই ধ্বংস প্রাপ্ত রক্ত কণা হতে তৈরি হয় বিলিরুবিন নামক পিত্ত রং।
বিলিরুবিন দেখতে হালকা হলুদ বর্ণের। কলিজা কোন কারনে পাগল হলে(রোগ আক্রান্ত ) কলিজায় বেশি বিলিরুবিন তৈরি হয়।
অতিরিক্ত বিলিরুবিন রক্তে চলে আসে এবং রক্তের রং কিছুটা হলুদ হয়।এই হলুদ রং দেহের পাতলা এবং অপেক্ষাকৃত স্বচ্ছ আবরণ যুক্ত অঙ্গে (যেমন- চোখ,মুখের ত্বক ,দেহের ত্বক ইত্যাদি )দেখা যায়।
দেহের এই হলদে রং বিশিষ্ট রোগকে আমরা জন্ডিস বা পান্ডু রোগ বলি।

হলুদ বেশি খেলে কি জন্ডিস হয়
জন্ডিস

হলুদ বেশি খেলে কি জন্ডিস হয়?

আপনি তো উপরের অংশ পড়ে নিজেই বুঝলেন যে হলুদ খাওয়ার সাথে জন্ডিসের কোন সম্পর্ক নেই। এটা একটি প্রাচিন ভ্রান্ত ধারনা।
হলুদ রং বিশিষ্ট রোগের জন্য বেচারা হলুদকে বলির পাঠা বানানো হয়েছিল।
কেউ কেউ হলদে পাউডার বা স্পাইস বা ঐ জাতীয় খাবার সম্পূর্ণ বন্ধ করে দেন – এটা ভুল –বরং এ সময় শরীরের প্রচুর এন্টি বডির দরকার তাই হলুদ ঔষধ হিসাবে খেলে ভালই হয়।হলুদ বেশি খেলে কি জন্ডিস হয়? আপনার উত্তর কি হবে এখন।

তরকারিতে হলুদ বেশি খেলে কি জন্ডিস হয়?হলুদের উপকারিতা, হলুদ বেশি খেলে কি জন্ডিস হয়?
হলুদ

হলুদের উপকারিতা

ঔষধি হিসেবে এর ব্যবহার প্রাচীন ভারতে বহুল প্রচলিত ছিলো। প্রাচীন আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে এর গুণের কথা উল্লেখ আছে। আসুন জানাযাক এর উপকারিতা।

লিভারের দোষ ও জন্ডিস সারাতে

পাণ্ডু রোগে (জন্ডিস) গায়ের রঙ ফ্যাকাশে হয়ে আসছে বুঝতে পারলে এর রস ৫ থেকে ১০ ফোঁটা থেকে শুরু করে বয়সানুপাতে ১ চা চামচ পর্যন্ত একটু চিনি বা মধু মিশিয়ে খাওয়ার ব্যবস্থা বহু আগে থেকে চলে আসছে।
আবার একটু গুঁড়া তার দ্বিগুণ পরিমাণ দইয়ে মিশিয়ে খেলে পিলে ও যকৃতের দোষ এবং জন্ডিস সারে। মধুসহ এটি খেলে বিশেষ উপকার হয়।

তোতলামি সারাতে হলদি

ছোটবেলায় যাদের কথা আটকে যায় বা স্বাভাবিকভাবে তাড়াতাড়ি কথা বলার অভ্যাস, সে ক্ষেত্রে এটি গুঁড়ো করে (কাঁচা শুকিয়ে গুঁড়ো করতে হবে) তা দুই-তিন গ্রাম পরিমাণে এক চা চামচ ঘিয়ে একটু ভেজে সেটাকে দুই-তিনবার চেটে চেটে খাওয়াতে হয়। এতে তোতলামি কমে যায়।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে

অ্যান্টি-ডায়াবেটিক উপাদানরূপে এতে থাকা কারকিউমিন বেশ ফলদায়ক। এটি রক্তে চিনির পরিমান হ্রাস করে। এটি ইনসুলিন হরমোনের কাজ নিয়ন্ত্রণ করে রক্তে চিনির মাত্রা নিয়ন্ত্রণ ও অগ্ন্যাশয়কে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

ত্বকের বয়স কমায়

কাঁচা হলদি খ্রীষ্টপূর্ব সাল থেকেই ত্বকের ঔজ্জ্বল্য রক্ষা করতে ও ত্বকের বয়স কমাতে ব্যবহার করা হচ্ছে।অনেক ফর্সাকারী ক্রিমে আজও এর রস ব্যবহার করা হয়।
বিয়ের অনুষ্ঠানের একটি অত্যাবশ্যকীয় দিন হলো হলদি মাখানো। এটি মাখালে কনের গায়ের রং হলুদাভ হবে এই আশাতেই হয়তো হলদি মাখানোর রীতির প্রচলন হয়েছে। হলুদে থাকা কারকিউমিনের অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট গুণ ত্বককে বয়সের ছাপ থেকে বাঁচায়।

হলুদ সন্ধা, হলুদ ত্বকের বয়স কমায়
হলদি নাইট

হলুদ ক্যান্সার দূর করতে সাহায্য করে

ক্যান্সার দূর করতে সহায়তা করে এতে থাকা কারকিউমিন। ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি হ্রাসের মাধ্যমে মৃত্যু ঘটায় কারকিউমিন নামক উপাদান। প্রায় ৫৬ রকম ক্যান্সারের সম্ভাবনা কমে যাবে আপনি যদি প্রতিদিন কাঁচা হলদির রস পান করেন বা চিবিয়ে খান।

আরথ্রাইটিসের থেকে বাঁচায়

এটি হাড়ের কোষকে ক্ষয়ের হাত থেকে রক্ষা করে ফলে আরথ্রাইটিস বা হাড় ক্ষয়ের রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।

গলা ও ফুসফুসের সংক্রমন থেকে রক্ষা

ঠান্ডা লাগার কারণে গলা ব্যাথা হলে বা ভাইরাসের আক্রমণে ফুসফুসের সংক্রমনজনিত কাশি হলে গরম পানিতে মধু ও হলদির রস বা পাউডার মিশিয়ে খেলে রোগ নিরাময় হয়।

এন্টিসেপটিক হিসেবে হলদি

কেটে যাওয়ার কারণে ক্ষত সৃষ্টি হলে হাতের কাছে এন্টিসেপটিক না থাকলে বিকল্প হিসেবে হলদির পেস্ট প্রলেপ হিসেবে দিন এতে জীবানুর সংক্রমণ বন্ধ হবে। গবাদিপশুর শরীরে ঘাঁ হলে এর পেস্ট বেশ ভালো এন্টিসেপটিক হিসেবে কাজ করে।

হলুদ মিশ্রিত দুধের উপকারীতা কি?

বহুপূর্ব সময় থেকেই হলুদ মিশ্রিত দুধ ঔষধ হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। বিভিন্ন রোগে হলদি মিশ্রিত দুধ বেশ উপকার দেয়। যেমন-

  • ১।ঠাণ্ডা লাগা দূর করে।
  • ২। বাতের ব্যাথা দূর করে
  • ৩। রক্ত পরিশোধন করে।
  • ৪। লিভার সুস্থ থাকে নিয়মিত হলদি মিশ্রিত দুধ পান করলে।
  • ৫। হাড় শক্তিশালী করে হলদি মিশ্রিত দুধ এর ক্যালসিয়াম ও এন্টিঅক্সিডেন্ট।
  • ৬। হজম শক্তি বৃদ্ধি করতে হলদি মিশ্রিত দুধ বেশ কার্যকর।
  • ৭। হলদি মিশ্রিত দুধ গরম গরম খেলে ওজন কমাতে সাহায্য করে এবং দেহের অতিরিক্ত চর্বি দূর করে।
  • ৮। শরীরের ব্যথা কমাতে হলদি মিশ্রিত দুধ প্রাকৃতিক ওষুধ হিসেবে কাজ করে।
  • ৯। ঘুমানোর ১ ঘন্টা আগে হলদি মিশ্রিত দুধ পান কররে ঘুমের সমস্যা দূর হয়।
  • ১০। হাঁপানি ও নিউমোনিয়ার কারণে শ্বাসকষ্ট হলে হলদি মিশ্রিত গরম দুধ শ্বাসনালির শ্লেষা দূর করে এবং প্রসারিত করে ফলে শ্বাসকষ্ট লাঘব হয়।
হলুদ মিশ্রিত দুধ
হলুদ মিশ্রিত দুধ

দুধহলুদের উপকারিকা কী?

ব্যথা, জ্বর,ঠান্ডা লাগা,ফ্লু সারাতে কাজ করে।

Holud beshi khele ki jondis hoy?

torkarite holud beshi khele ki jondis hoy? torkarite holud beshi khele ki hoy? holud khichuri khele ki jondis hoy? Termaric and milk drink health benefit bangla,

Please click on Just one Add to Help Us

মহাশয়, জ্ঞান বিতরণের মত মহৎ কাজে অংশ নিন।ওয়েবসাইট টি পরিচালনার খরচ হিসেবে আপনি কিছু অনুদান দিতে পারেন, স্পন্সর করতে পারেন, এড দিতে পারেন, নিজে না পারলে চ্যারিটি ফান্ডের বা দাতাদের জানাতে পারেন। অনুদান পাঠাতে পারেন এই নম্বরে ০১৭২৩১৬৫৪০৪ বিকাশ,নগদ,রকেট।

এই ওয়েবসাইট আমার নিজের খরচায় চালাই। এড থেকে ডোমেইন খরচই উঠেনা। আমি একা প্রচুর সময় দেই। শিক্ষক হিসেবে আমার জ্ঞান দানের ইচ্ছা থেকেই এই প্রচেষ্টা। আপনি লিখতে পারেন এই ব্লগে। এগিয়ে নিন বাংলায় ভালো কিছু শেখার প্রচেষ্টা।

DMCA.com Protection Status