ডোপ টেস্ট কী? কিভাবে ডোপটেস্ট করা হয়#

সূচীপত্র
  1. মাদক পরীক্ষা কী? কিভাবে মাদক পরীক্ষা করা হয়#
  2. ডোপ টেস্ট কিভাবে করা হয়?
  3. ডোপ টেস্টের প্রকারভেদ

মাদক পরীক্ষা কী? কিভাবে মাদক পরীক্ষা করা হয়#

বর্তমানে কিশোর থেকে শুরু করে বৃদ্ধ পর্যন্ত মানুষ মাদকের নেশায় আসক্ত। সরকারের আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা আপ্রাণ চেষ্টা করেও মাদকের ভয়াল থাবা থেকে মাদকসেবীদের সংখ্যা কমাতে ব্যর্থ হচ্ছে। ভয়ংকর নেশার ফাঁদে পা দিয়ে অসংখ্য মানুষ মৃত্যুকে বরণ করছে। মাদকসেবী শুধু নিজ পরিবারের জন্য নয় পুরো দেশের জন্য মারাত্বক হুমকি স্বরূপ। মাদকসেবী যে কাজেই নিয়োজিত থাকুক না কেন, তারা পুরোপুরি দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়।

শিক্ষাক্ষেত্রে মাদকাসক্ত শিক্ষার্থীর প্রবেশ দেশ ও জাতীর জন্য মারাত্মক হুমকির কারণ।সরকার এসব কারণে জাতীকে মাদকমুক্ত সমাজ উপহার দেয়ার জন্য উচ্চশিক্ষা গ্রহণে ইচ্ছুক যুবক ও চাকুরিতে প্রবেশকারী ব্যক্তির মাদকের পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করেছে। সরকারি বা বেসরকারি চাকুরিতে প্রবেশের আগে এবং উচ্চশিক্ষা গ্রহণের শুরুতে মাদক পরীক্ষা বা ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক।

ডোপ টেস্টে পজিটিভ হলে চাকুরিতে প্রবেশ করতে পারবে না এবং চাকুরিরত কেউ যদি ডোপটেস্টে পজিটিভ হয় তবে তার চাকুরি চলে যাবে। ডোপটেস্টে পজিটিভ কোন শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করতে পারবে না। তাই আসুন আজ জেনে নেই ডোপটেস্ট কী? ডোপ টেস্ট কিভাবে করে সে সম্পর্কে বিস্তারিত।

ডোপ টেস্ট কী কিভাবে ডোপটেস্ট করা হয়#

আপনি আর পড়তে পারেন …..  কোন মাদক দেহে কতদিন থাকে? ……. ডোপ টেস্ট থেকে বাঁচার উপায় কী? …. ডোপ টেস্ট ভুল হয় কোন ওষুধ খেলে?

ডোপটেস্ট কী?

কোন ব্যক্তির দেহে মাদকদ্রব্যের উপস্থিতি সনাক্ত করার জন্য যে পরীক্ষা করা হয় তাকে ডোপটেস্ট বলে।

সূত্র: উইকিপেডিয়া

ডোপটেস্ট কেন করা হয়?

বিভিন্ন কারণে ডোপটেস্ট এর প্রয়োজন হয়। যেমন-

মাদকসেবী সনাক্ত করার জন্য

কোন ব্যক্তি মাদক সেবন করে কিনা তা পরীক্ষা করার জন্য এই টেস্ট করা হয়।

ট্রাফিক আইনে ডোপটেস্ট

ট্রাফিকপুলিশের মাদক ডোপ টেস্ট
ট্রাফিকপুলিশের মাদক ডোপটেস্ট

কোন গাড়িচালক বা মোটরসাইকেল আরোহী বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালালে ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট সন্দেহের বশবর্তী হয়ে চালকের ডোপটেস্ট করতে পারেন।দুর্ঘটনার কারণ উদঘাটনের জন্য দুর্ঘটনাকবলিত যানবাহনের চালক,সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত চালকের, দুর্ঘটনার শিকার জীবিত অথবা মৃত ব্যক্তির ডোপটেস্ট করা হয়।

অ্যাথলেট বা খেলোয়াড়দের ডোপ টেস্ট

অ্যাথলেট বা খেলোয়াড়দের ডোপ টেস্ট
মারাডনার ডোপটেস্ট

ঔষধ বিজ্ঞানের উন্নতির কারণে খেলোয়াড়রা বিভিন্ন ধরণের শক্তিবর্ধক ড্রাগ ব্যবহার করেন। এসব ড্রাগ স্বাভাবিক শারীরিক সক্ষমতাকে বহুগুণে বৃদ্ধি করে। সাধারণ প্রতিযোগী দেহে যে পরিমাণ শক্তি উৎপন্ন করে তারচেয়ে অনেক বেশি শক্তি উৎপন্ন করতে পারে ড্রাগ গ্রহণকারী অ্যাথলেট। এরফলে ড্রাগ গ্রহণকারী খেলোয়াড় সহজে অন্যদের হারিয়ে দেন। এটি একটি অনৈতিক পদ্ধতি। ড্রাগ গ্রহণকারী খেলোয়াড় সনাক্ত করার জন্য ডোপ টেস্ট করা হয়।

আইনি জটিলতার জন্য

বিভিন্ন মামলার ক্ষেত্রে মামলার রহস্য উদঘাটনে ডোপ টেস্ট করা হয়। আদালতে মামলার রায় ডোপ টেস্টের ফলাফল দ্বারা প্রভাবিত হয়।

ফরেনসিক ডোপটেস্ট

মৃতদেহের ডোপ টেস্ট করা হয় মৃত্যুর কারণ জানার জন্য।

বাংলাদেশে ডােপ টেস্ট

পৃথিবীর অনেক দেশে ডোপটেস্ট ব্যাপকভাবে প্রচলিত। এরই ধারাবাহিতায় উন্নত বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে বাংলাদেশেও ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। চাকুরিতে প্রবেশের সময় ডোপটেস্ট বাধ্যতামূলক করার আইন পাশ হয়েছে এখন শুধু কার্যকর হওয়ার অপেক্ষা।প্রশাসনিক অনুমােদন পাওয়ার পর এব্যাপারে গ্যাজেট প্রকাশ করা হবে এবং তারপর আইনটি কার্যকর করা হবে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

বাংলাদেশে কখন এবং কাদের ডোপ টেস্ট করা হয়?

চাকরিক্ষেত্রে

সরকারি,আধা-সরকারী,স্বায়ত্তশাসিত,স্থানীয় সরকারি ও বেসরকারি সকল চাকরিতে ঢোকার সময় স্বাস্থ্য পরীক্ষার সাথে মাদক পরীক্ষার সনদ জমা দিতে হবে। চাকুরিরত কোন কর্মচারী বা কর্মকর্তার আচরণ সন্দেহজনক হলে যেকোন সময় তার ডোপ টেস্ট করা হতে পারে।

ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার জন্য:

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার বা নবায়ন করার সময় ডােপ টেস্ট নেগেটিভ এর সার্টিফিকেট ও প্রয়ােজন হবে।

শিক্ষাক্ষেত্রে:

বেশ কিছু সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের ভর্তির সময় এই টেস্ট প্রয়োজন হবে।

বিদেশ ভ্রমণে:

শিক্ষা, গবেষণা বা কাজের উদ্দেশ্যে বিদেশ যেতে চাইলে বাংলাদেশী নাগরিকদের মাদক পরীক্ষার রিপোর্ট জমা দিতে হবে।

অস্ত্রের লাইসেন্স করতে:

মাদক সেবনকারীর হাতে অস্ত্র থাকলে তা সর্বসাধারণের জন্য বিপজ্জনক হতে পারে। সেকারণে অস্ত্রের লাইসেন্স নেওয়ার জন্য ডােপ টেস্ট করার নিয়ম চালু করা হবে।

ডোপটেস্টের মাধ্যমে কোন কোন মাদক সনাক্ত করা হয়?

বাংলাদেশে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর (ডিএনসি) এর প্রণীত খসড়া অনুযায়ী ডােপ টেস্টে নির্দিষ্ট কিছু ড্রাগ পরীক্ষা করা হবে।

  • ডায়াজেপাম,লােরাজেপাম,অক্সাজেপাম,টেমাজেপাম
  • কোডিন, মরফিন,হেরােইন,কোকেন
  • গাজা, ভাং,চরস
  • এলকহোল বা মদ
  • ফেন্সিডিল
  • ইয়াবা,এলএসডি,Ecstasy,DMT

ডোপ টেস্ট কিভাবে করা হয়?

কয়েকটি ধাপে ডোপটেস্ট করা হয়।

ডোপটেস্টের ফর্ম পূরণ করা

ডোপ টেস্টের ফর্ম পূরণ
ডোপটেস্টের ফর্ম পূরণ

যে ব্যক্তি ডোপ টেস্ট করাবে তার তথ্য সংগ্রহ করার জন্য একটি ফর্ম থাকে। টেস্টের আগে ফর্মটি পুরণ করতে হয়। ফর্মে সাধারণত যার টেস্ট করা হবে তার নাম, ঠিকানা, বয়স, উচ্চতা, ওজন, খাদ্যাভ্যাস, শারীরিক বর্ণনা থাকে.

ডোপটেস্ট এর নমুনা সংগ্রহ

ডোপ টেস্টের নমুনা সংগ্রহ

মানবদেহের বিভিন্ন অংশ থেকে ডোপ টেস্টের জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়। যেমন- মল,মূত্র,ঘাম,নিশ্বাস,রক্ত,টিস্যু,লালা,চুল,নখ নমুনা হিসেবে সংগ্রহ করা হয়। মূত্রের ক্ষেত্রে অন্তন্ত ৯০ মি.লি মূত্র সংগ্রহ করা হয়। টেস্টের জন্য ৫-১০০ মি.লি রক্ত সংগ্রহ করা হয় ইন্জেকশন সিরিঞ্জের মাধ্যমে।

নরম তুলা দিয়ে তৈরি ছোট কাঠির সাহায্যে ত্বকের উপর থেকে ঘাম,মুখগহ্বর থেকে লালা সংগ্রহ করা হয়।

নমুনা পরীক্ষা

নমুনা পরীক্ষা
নমুনা পরীক্ষা

নমুনার রাসায়নিক পরীক্ষা করার জন্য বিভিন্ন যন্ত্র ও টেস্ট কিট ব্যবহার করা হয়। নমুনা এসব কিটে দেয়ার পর টেস্ট কিটের বর্ণ পরিবর্তন হয় এই বর্ণ পরিবর্তন দেখে খুব সহজে মাদকদ্রব্যের উপস্থিতি সনাক্ত করা যায়। কারো দেহ থেকে প্রাপ্ত নমুনায় যদি মাদকের উপস্থিতি না থাকে তাহলে টেস্ট কিটের বর্ণ পরিবর্তন হবে না। বিভিন্ন মাদকের উপস্থিতি পরীক্ষার জন্য যে সব পরীক্ষণ যন্ত্র ব্যবহার করা হয় তার একটি তালিকা দেখুন…

নমুনাপরীক্ষার উপাদান
লোহিত রক্ত কণিকা RBCElectrophoresis Serum
GH HormoneLuminometer Serum
Whole BloodSysmex XT2000i
Blood TransfusionFlowcytometer 500
Hemoglobin Based Oxygen CarriersELISA Reader, LC-MS/MS

রিপোর্ট প্রদান

ডোপ টেস্টের রিপোর্ট প্রদান
ডোপটেস্টের রিপোর্ট প্রদান

সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগে কর্মরত গেজেটেড স্বাস্থ্য ক্যাডার ডোপ টেস্টের রিপোর্ট প্রস্তুত করার ক্ষমতা রাখেন। পরীক্ষার ফলাফল পজেটিভ হলে পরীক্ষক ডাক্তার পজিটিভ রিপোর্ট দেন আর নেগেটিভ হলে মাদকমুক্ত সার্টিফিকেট প্রদান করেন। এই রেজাল্ট আইনি লড়াই এর ক্ষেত্রে আদালতে বিরাট ভূমিকা রাখে।

ডোপ টেস্টের প্রকারভেদ

সন্দেহভাজন ব্যক্তির দেহ থেকে নেয়া নমুনার ধরণের উপর ডোপ টেস্ট কয়েক ধরণের হয়। যেমন-

ইউরিন টেস্ট

মাদকাসক্ত রোগীর মূত্র সংগ্রহ করে মাদকের উপস্থিতি পরীক্ষা করার পদ্ধতি হলো ইউরিন টেস্ট। এটি সহজলভ্য ও বহুল ব্যবহৃত পদ্ধতি।ইউরিন টেস্টের মাধ্যমে কোকেইন,আফিম,হেরোইন,গাঁজা,মদ,হেরোইন,এম্ফিটামিন জাতীয় মাদকের উপস্থিতি সনাক্ত করা হয়।

মুখের লালা বা থুতু পরীক্ষা

একটি পটে সন্দেহভাজন ব্যক্তির মুখের লালা,থুতু, কফ ইত্যাদি সংগ্রহ করে ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করা হয়।কোকেইন,আফিম,হেরোইন,মদ,হেরোইন,এম্ফিটামিন গ্রহনের কয়েকদিন পর এই পরীক্ষা করে মাদকের উপস্থিতি সনাক্ত করা যায়।গাঁজা সেবনের ১০ ঘন্টা পর এই পরীক্ষা করে দেহে গাঁজার উপস্থিতি ধরা যায়।

রক্ত পরীক্ষা

যত ধরণের ডোপটেস্ট আছে তার মধ্যে রক্ত পরীক্ষা অধিক কার্যকর। এই টেস্টের ফলাফল প্রায় শতভাগ নির্ভুল। দেহ থেকে রক্ত সংগ্রহ করে অভিজ্ঞ প্যাথোলজিস্ট জৈবরাসায়নিক পরীক্ষার মাধ্যমে মাদকের উপস্থিতি নির্ভুলভাবে সনাক্ত করেন।

অ্যালকোহল বা মদ সেবনের ২৪ ঘন্টার মধ্যে রক্ত পরীক্ষা করলে অ্যালকোহলের উপস্থিতি ধরা পরে।cocaine, marijuana, amphetamine, opiates, methamphetamines, and nicotine গ্রহণ করলে ১ সপ্তাহ পরেও রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে ধরা পরে।

চুল পরীক্ষা

ডোপটেস্ট চুল পরীক্ষা

মাদকদ্রব্য গ্রহণ করলে তার ক্ষতিকর উপাদান চুলে জড়ো হয়। ৯০ দিনের মধ্যে কেউ গাঁজা, কোকেন, আফিম, হেরোইন, methamphetamine, এবং phencyclidine (PCP) সেবন করলে চুল পরীক্ষা করে ধরা সম্ভব। এক্ষেত্রে সবচেয়ে নতুন গজানো চুল ব্যবহার করা হয়। কমপক্ষে ১.৫ ইঞ্চি দৈর্ঘের চুল প্রয়োজন এই পরীক্ষার জন্য।

নিঃশ্বাস পরীক্ষা

ব্রেথেলাইজার মেশিন ডোপটেস্ট
ব্রেথেলাইজার মেশিন

দেহে অ্যালকোহলের উপস্থিতি সনাক্ত করার দ্রুত ও সহজ পরীক্ষা হলো নিশ্বাস পরীক্ষা। অ্যালকোহল ডিটেক্টর ব্রেথেলাইজার দিয়ে সন্দেহভাজন ব্যক্তির নিঃশ্বাস পরীক্ষা করা হয়। এক্ষেত্রে মাদক গ্রহনকারী ব্যক্তিকে একটি কাচনলের ভেতর নিঃশ্বাস ছাড়তে হয়। পুলিশের ট্রাফিক ইউনিট এই পদ্ধতি বেশি ব্যবহার করে।

ডোপটেস্ট কোথায় করা হয়?

বিসিএস ক্যাডার ডাক্তার বসেন এমন মেডিকেল কলেজের রক্ত পরীক্ষাগারে ডোপ টেস্ট করা যায়।আবার পরমাণু চিকিৎসাকেন্দ্রেও করা হয়। গ্যাজেটেড চিকিৎসা কর্মকর্তা সার্টিফিকেট দিতে পারেন।

কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, ঢাকা, ময়মনসিংহ, রাজশাহী, দিনাজপুর, পটুয়াখালী, বরিশাল, খুলনা, পাবনা, রংপুর, সিলেট, কুমিল্লা, নোয়াখালী, কুষ্টিয়া, বগুড়া, গাজীপুর, ফরিদপুর, টাঙ্গাইল, যশোর ও নরসিংদী জেলার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতির পাশাপাশি মিনিল্যাব বসানো হবে ডোপটেস্ট করার জন্য।

বাংলাদেশে ডোপটেস্টর খরচ কত?

ডোপ টেস্ট কত টাকা লাগবে?

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার,স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়,স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ সরকারি স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা-১ শাখা, বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা

সরকারী চাকুরীতে নিয়ােগের পূর্বে বাছাইকৃত ব্যক্তির বিদ্যমান স্বাস্থ্য পরীক্ষার সাথে ডােপ টেস্ট পরীক্ষা অন্তর্ভুক্ত করার লক্ষ্যে সকল সরকারী স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠানে Non specific test এবং Alcohol Test এর হার ছক অনুযায়ী নির্ধারণে নিম্নোক্ত শর্তে সম্মতি জ্ঞাপন করা হলাে:

ক্রমিক নংপরীক্ষা-নিরীক্ষার নামপ্রস্তাবিত ফি (টাকায়)
1Benzodiazepines150/- (One Hundred and fifty taka)
2Amphetamine150/- (One Hundred and fifty taka)
3Opiates150/- (One Hundred and fifty taka)
4Cannabinoids150/- (One Hundred and fifty taka)
5Alcohol300/- (three Hundred taka)
Total900/- Taka
ডোপ টেস্টের খরচ কত?

যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমােদনক্রমে জনস্বার্থে জারীকৃত এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে।

(মাে: আবু রায়হান মিঞা)
উপসচিব ফোনঃ ৯৫৫৬৯৮৯

কিছু প্রশ্ন ও উত্তর

কত দিন ধরে মাদক গ্রহণ করলে ডােপটেস্ট পজিটিভ আসবে?

টেস্টের সময়সীমার মধ্যে মাদক গ্রহণ করলে ফলাফল পজেটিভ হবে। অনেক দিন ধরে মাদক গ্রহণ করে কিন্তু টেস্টের ৬ মাস আগে থেকে কোন মাদক গ্রহণ করে না তাহলে তার ফলাফল নেগেটিভ আসবে। কিন্তু কোনদিন মাদক সেবন করেনি এমন ব্যক্তি টেস্টের ১ দিন আগে মাদক সেবন করেছেন তার ফলাফল পজেটিভ আসবে।

ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে ডোপটেস্ট পজিটিভ হলে কি করবো?

কোনাে ঔষধের কারণে ডােপ টেস্টের ফলাফল পজিটিভ আসলে ঐ ঔষধ গ্রহণের প্রমাণ ও ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন দেখাতে হবে।
যথাযথ প্রমাণ ও কাগজপত্র দেখাতে পারলে ঐ ব্যক্তির বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হবে না।

ডােপটেস্টের ফলাফল কি ভুল আসতে পারে?

মূত্র, ঘাম,লালা,নিঃশ্বাস ইত্যাদির পরীক্ষা করার সময় ১ম নমুনার ক্ষেত্রে ফলাফল ভুল আসার সম্ভাবনা একটু আছে। তবে একই ব্যক্তির ২য় বার নমুনা নিয়ে পরীক্ষা করলে বা রক্ত পরীক্ষা করলে ভুল না হওয়ার সম্ভাবনা প্রায় শতভাগ।

সিগারেট খেলে কি ডােপটেস্টে পজিটিভ আসার সম্ভাবনা আছে?

তামাকের মূল উপাদান নিকোটিন মাদকের তালিকাভুক্ত নয় তাই সিগারেট খেলে ডোপটেস্টের রিপোর্ট পজেটিভ হবে না।

গাঁজা বা ইয়াবার ধোয়া ফুসফুসে গেলে কি ডোপটেস্ট পজিটিভ হবে?

হ্যাঁ, গাঁজা বা ইয়াবার ধোয়া ফুসফুসে গেলে ডোপটেস্ট পজিটিভ হবে।

Info source : medlineplus.gov

Please Click on Just one Add to help us

মহাশয়, জ্ঞান বিতরণের মত মহৎ কাজে অংশ নিন।ওয়েবসাইট টি পরিচালনার খরচ হিসেবে আপনি কিছু অনুদান দিতে পারেন, স্পন্সর করতে পারেন, এড দিতে পারেন, নিজে না পারলে চ্যারিটি ফান্ডের বা দাতাদের জানাতে পারেন। অনুদান পাঠাতে পারেন এই নম্বরে ০১৭২৩১৬৫৪০৪ বিকাশ,নগদ,রকেট।

এই ওয়েবসাইট আমার নিজের খরচায় চালাই। এড থেকে ডোমেইন খরচই উঠেনা। আমি একা প্রচুর সময় দেই। শিক্ষক হিসেবে আমার জ্ঞান দানের ইচ্ছা থেকেই এই প্রচেষ্টা।

Leave a Comment